শনিবার, ২৫শে সেপ্টেম্বর ২০২১, ৯ই আশ্বিন ১৪২৮


বস্তিবাসীর ফ্ল্যাট পেয়েছেন একই পরিবারের একাধিক সদস্য ও ভবন মালিক!


প্রকাশিত:
২৫ আগস্ট ২০২১ ১৭:৩৮

আপডেট:
২৫ আগস্ট ২০২১ ১৭:৫১

ছবি: সংগৃহীত

ঢাকার মিরপুর-১১ নম্বর বাউনিয়া বাঁধে বস্তিবাসীদের জন্য নির্মিত ভাড়াভিত্তিক ফ্ল্যাট বরাদ্দ নিয়ে বিভিন্ন ধরনের অনিয়মের অভিযোগ উঠেছে। ফ্ল্যাট বরাদ্দের ক্ষেত্রে অনিয়ম, দুর্নীতি, স্বজনপ্রীতি ও আর্থিক লেনদেনের আশ্রয় নেওয়া হয়েছে বলে অভিযোগ বস্তির বাসিন্দাদের।

বস্তিবাসীর জন্য ২০১৮ সালের জুনে মিরপুর-১১ নম্বর বাউনিয়া বাঁধ এলাকায় ১৪ তলার মোট পাঁচটি ভবনের নির্মাণকাজ শুরু করে জাতীয় গৃহায়ণ কর্তৃপক্ষ। এর মধ্যে তিনটি ভবনের ৩০০ ফ্ল্যাট বিভিন্ন বস্তিতে থাকা ৩০০ জনকে ভাড়ায় বরাদ্দ দেওয়া হয়। বস্তিবাসীর জন্য ভাড়াভিত্তিক ফ্ল্যাট প্রকল্পের উদ্বোধন ও হস্তান্তর করা হয় ৩ আগস্ট । ওই দিনই ভাড়াপত্র হস্তান্তর করা হয়।

ভবন নির্মাণের জন্য বাউনিয়া বাঁধ কলাবাগান বস্তির যেসব বাসিন্দাকে উচ্ছেদ করা হয়েছে, তাদের অগ্রাধিকার ভিত্তিতে ভাড়াভিত্তিক ফ্ল্যাট বরাদ্দ দেওয়ার কথা থাকলেও তা করা হয়নি বলে অভিযোগ করেন ওই বস্তির বাসিন্দারা।

তাদের অভিযোগ, যারা ভাড়াপত্র হাতে পেয়েছেন, এদের মধ্যে অনেকের নিজস্ব বাড়ি রয়েছে। ভাড়াপত্র পাওয়াদের মধ্যে দ্বিতীয় তলা থেকে ষষ্ঠ তলা পর্যন্ত ভবনের মালিকও রয়েছেন। আবার একই পরিবারের একাধিক সদস্যের নামেও ফ্ল্যাট বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে। ব্যাচেলর, চিহ্নিত মাদক ব্যবসায়ীর নামেও ফ্ল্যাট বরাদ্দ হয়েছে বলে তারা অভিযোগ করেন।

এসব অভিযোগের প্রতিকার চেয়ে মঙ্গলবার (২৪ আগষ্ট) জাতীয় গৃহায়ণ কর্তৃপক্ষ ঢাকা ডিভিশন ১-এর নির্বাহী প্রকৌশলীর কাছে কলাবাগান বস্তিবাসীর পক্ষে লিখিত অভিযোগ জমা দেন বস্তির বাসিন্দা শেখ জাহাঙ্গীর।

অভিযোগে তিনি উল্লেখ করেন, ২৫ বছর ধরে কলাবাগান বস্তিতে মানবেতর জীবনযাপন করছি। সম্প্রতি বস্তিবাসীর জন্য প্রধানমন্ত্রীর উপহারের যে ৩০০ ফ্ল্যাট ভাড়ার ভিত্তিতে হস্তান্তর করা হয়েছে, সেখানে আমার মতো অনেক অসহায় গৃহহীন বস্তিবাসীর কপালে ফ্ল্যাট জুটেনি। অথচ যাদের নিজস্ব ৫ তলা, ৬ তলা কিংবা বাড়ি রয়েছে, এদের অনেকেই ফ্ল্যাট বরাদ্দ পেয়েছেন। আবার একই পরিবারের ১২ থেকে ১৯ জন সদস্যও ফ্ল্যাট পেয়েছেন। এর মধ্যে এক চিহ্নিত বিএনপি নেত্রী রয়েছেন, যার পরিবারের ১৯ জন সদস্য রয়েছে। আবার যাদের ভোটার আইডি কার্ডে বস্তি লেখা নেই, তাদেরও ফ্ল্যাট দেওয়া হয়েছে। এর পাশাপাশি বাউনিয়া বাঁধের ২৬০০ বাস্তুহারা পরিবারের যারা দলিল পেয়েছেন, তাদের অনেকে ফ্ল্যাট পেয়েছেন। বস্তিতে যারা একসময় বসবাস করতেন, পরবর্তী সময়ে তারা বস্তি ছেড়ে অন্যত্র চলে গেছেন, তাদের অনেকে টাকা দিয়ে ফ্ল্যাট বরাদ্দ নিয়েছেন।

অভিযোগের এক স্থানে শেখ জাহাঙ্গীর কয়েকজন ব্যক্তির নাম উল্লেখ করেন— যাদের ফ্ল্যাট পাওয়া নিয়ে আপত্তি রয়েছে বস্তিবাসীর। তারা হলেন— পারভীন, রেহেনা, হালিমা, আব্দুর রশিদ, শাহজাহান মিয়া, নজরুল ইসলাম নাঈম, সেন্টু, জহির, রফিক, হাবু, জাহাঙ্গীর, আকরাম, আক্কাস, মোশারফ ও তাছলিমা।

তিনি আরও অভিযোগ করেন, ফ্ল্যাট পাওয়ার জন্য যেসব শর্ত রয়েছে, যারা এসব শর্ত গোপন করে ফ্ল্যাট নিয়েছেন, সঠিক তদন্ত করে তাদের নাম বাদ দিতে হবে। আর যারা প্রকৃত বস্তিবাসী এবং এখনও বস্তিতে বসবাস করছেন, এদের যত তাড়াতাড়ি সম্ভব ফ্ল্যাটের ভাড়াপত্র হস্তান্তর করতে হবে।

কলাবাগান বস্তিবাসীর পক্ষে অভিযোগ জমা দেন শেখ জাহাঙ্গীর

বাউনিয়া বাঁধ এলাকার বাসিন্দা রনি তালুকদার বলেন, অনেকে ধারণা করেছিল ফ্ল্যাট পেলেই এর মালিকানা পাওয়া যাবে। তাই সবাই ফ্ল্যাট নেওয়ার জন্য হুমড়ি খেয়ে পড়েন। অনেকে টাকার বিনিময়ে কিংবা লবিং করে ফ্ল্যাট বাগিয়েছেন। ওই সময় অনেক বাড়ির মালিক সুযোগ বুঝে তালিকায় তাদের নাম উঠিয়েছেন। যখন ভাড়াভিত্তিক ফ্ল্যাট দেওয়া হলো, তখন অনেকের কপালে ভাঁজ পড়ে। এখন অনেকে ফ্ল্যাট নিতে চান না কিন্তু ওই সময় যে নামের তালিকা হয়েছে, সেখানে তো গরমিল থেকেই গেছে।

জাহাঙ্গীরের অভিযোগে যাদের নাম উল্লেখ করা হয়েছে, সে তালিকা ধরে অনুসন্ধানে মিলেছে ঘটনার সত্যতা।

স্থানীয়দের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, হালিমা ২ নম্বর ভবনের ৮ম তলায় একটি ফ্ল্যাটের বরাদ্দপত্র পেয়েছেন। হালিমার স্বামীর নাম মিন্টু। তাদের বাউনিয়া বাঁধ ই ব্লকে ১১ নম্বর লাইনে একটি তিনতলা বাড়ি রয়েছে। ফ্লাটপ্রাপ্তি নিয়ে হালিমার স্বামী মিন্টুর একটি ভিডিও বক্তব্য যুগান্তরের কাছে সংরক্ষিত রয়েছে।

অন্যদের মধ্যে রেহেনার বাউনিয়া বাঁধ বি ব্লকের ২১ নম্বর লাইনে একটি ছয়তলা বাড়ি রয়েছে। রেহেনার স্বামীর নাম হাকিম। বাসা নম্বর ৬। আক্কাসের বি ব্লকের ২১ নম্বর লাইনে ২ তলা বাড়ি রয়েছে। পিতার নাম ফেলু খাঁ। বাসা নম্বর ৭। আব্দুর রশিদের বি ব্লকের ২০ নম্বর লাইনে ৫ তলা বাড়ি রয়েছে। পিতার নাম সুন্দর আলী বাসা নম্বর ৯। পারভীনের ই ব্লকের ৮ নম্বর লাইনে ৩ তলা বাড়ি রয়েছে। পিতার নাম কালু শিয়ালী। বাসা নম্বর ৯। হালেমার বি ব্লকের ১১ নম্বর লাইনে ৩ তলা বাড়ি রয়েছে। পিতার নাম আলম বাড়ি নম্বর-১।

এক পরিবারের একাধিক সদস্য যারা ফ্ল্যাট পেয়েছেন, তারা হলেন— বিএনপি নেত্রী রেহেনার পরিবারের ১৯ সদস্য, আকরামের পরিবারের ১২ জন, নজরুল ইসলাম নাঈম চেয়ারম্যানের পরিবারের ৪ জন, মোশারফের পরিবারের ৯ জন, বানেছার পরিবারের ৪ জন, সেন্টুর পরিবারের ৬ জন, জহিরের পরিবারের ৪ জন, রফিকের পরিবারের ৩ জন ও আলমগীরের পরিবারের ৩ জন।

জাতীয় গৃহায়ণ কর্তৃপক্ষ ঢাকা অঞ্চল ১-এর নির্বাহী প্রকৌশলী জোয়ারদার তাবেদুন নবী বলেন, ভাড়াভিত্তিক ৩০০ ফ্ল্যাটের মধ্যে ২৭২টি ফ্ল্যাটের ভাড়াপত্র হস্তান্তর করা হয়েছে। আমরা ভাড়া পত্র হস্তান্তর করেছি, এখনও কারও সঙ্গে চুক্তি করিনি। তালিকা করতে গিয়ে কিছু ভুলভ্রান্তি হয়েছে। সেগুলো যাচাই-বাছাই চলছে। তালিকা আপগ্রেড হচ্ছে। কিছু অভিযোগ এসেছে। তদন্ত চলছে। ভাড়াপত্র যারা পেয়েছেন, তাদের কেউ ব্যাচেলর, মাদকসেবী ও বাড়ির মালিক হলে বাদ দেওয়া হবে।

নির্বাহী প্রকৌশলীর কাছে ভাড়া পত্রের তালিকা চাওয়া হলে তিনি বলেন, আপনার কাছে কোনো তথ্যপ্রমাণ থাকলে দেন, আমাদের অনেক উপকার হবে। এখন আপনাকে ফ্ল্যাট বরাদ্দের তালিকা দেওয়া যাবে না। একটু সমস্যা আছে। আগামী মাসের প্রথম সপ্তাহে অবশ্যই তালিকা দেব।



আপনার মূল্যবান মতামত দিন:


রিসোর্সফুল পল্টন সিটি (১১ তলা) ৫১-৫১/এ, পুরানা পল্টন, ঢাকা-১০০০।
মোবাইল: ০১৭১১-৯৫০৫৬২, ০১৯১২-১৬৩৮২২
ইমেইল : [email protected], [email protected]
সম্পাদক: মো. জেহাদ হোসেন চৌধুরী

রংধনু মিডিয়া লিমিটেড এর একটি প্রতিষ্ঠান।

Developed with by
Top