ঢাকা বুধবার, ২৭শে জানুয়ারী ২০২১, ১৪ই মাঘ ১৪২৭


পরমাণু বিজ্ঞানী হত্যা : কঠিন প্রতিশোধ নেওয়ার শপথ ইরানের


প্রকাশিত:
২৮ নভেম্বর ২০২০ ১০:৫৪

আপডেট:
২৭ জানুয়ারী ২০২১ ১১:৫৩

শীর্ষ পরমাণু বিজ্ঞানী মোহসেন ফখরিজাদাহ। ছবি : রয়টার্স

ইরানের শীর্ষ পরমাণু বিজ্ঞানী মোহসেন ফখরিজাদাহ রাজধানী তেহরানের কাছে সন্ত্রাসী হামলায় নিহত হয়েছেন। এ ঘটনার প্রতিশোধ নেওয়ার শপথ নিয়েছে ইরান। দেশটির সর্বোচ্চ নেতা আয়াতুল্লাহ আলী খামেনীর সামরিক উপদেষ্টা হোসেইন দেহাগান বলেছেন, ‘সন্ত্রাসীদের ওপর বজ্রপাতের মতো আঘাত হানা হবে।’

ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম বিবিসির প্রতিবেদনে এ তথ্য জানানো হয়েছে। গতকাল শুক্রবার তেহরানের দামাবন্দ এলাকায় ফখরিজাদাহর ওপর হামলার পর তাকে হাসপাতালে নেওয়া হয়। সেখানে চিকিৎসকরা তাকে মৃত ঘোষণা করেন। ইরানের পররাষ্ট্রমন্ত্রী মোহাম্মদ জাভেদ জারিফ এই হত্যার ঘটনায় নিন্দা জানিয়ে একে কোনো ‘রাষ্ট্রের মদদে’ হয়েছে বলে সন্দেহ প্রকাশ করছেন।

বিবিসির প্রতিবেদনে বলা হয়, ‘পশ্চিমা গোয়েন্দা সংস্থাগুলো মনে করে, মোহসেন ফখরিজাদাহ ইরানের গুপ্ত পারমানবিক অস্ত্র কর্মসূচির পেছনে রয়েছেন।’ আন্তর্জাতিক কূটনীতিকরা তাকে ‘ইরানি বোমার জনক’ হিসেবে অভিহিত করতেন। তবে পারমাণবিক অস্ত্র কর্মসূচিকে ইরান শান্তিরক্ষার জন্য বলে দাবি করে আসছে।

পররাষ্ট্রমন্ত্রী মোহাম্মদ জাভেদ জারিফ গতকাল টুইট বার্তায় বলেন, ‘সন্ত্রাসীরা ইরানের একজন প্রখ্যাত বিজ্ঞানীকে হত্যা করেছে। তিনি এ হামলার জন্য ইসরাইলকে দায়ী করেন। তবে ইসরাইলের পক্ষ থেকে কোনো বিবৃতি এখনো আসেনি।

জাতিসংঘে নিযুক্ত ইরানের রাষ্ট্রদূত মজিদ তাখত রাভঞ্চি বলেছেন, ‘এ হত্যাকাণ্ড আন্তর্জাতিক আইনের সুস্পষ্ট লঙ্ঘন। যা এ অঞ্চলে বড় ধরনের বিপর্যয় ঘটাতে করা হয়েছে।’

ইসলামী বিপ্লবী গার্ড কর্পসের কমান্ডার মেজর জেনারেল হোসেইন সালামি বলেছেন, ‘আধুনিক বিজ্ঞানে আমাদের প্রবেশ রোধ করতে এ ধরনের হামলা চালানো হয়েছে। বিশ্বব্যাপী আধিপত্যের জেরে আমাদের পারমাণবিক বিজ্ঞানীকে হত্যা করা হয়েছে।’

ইরান সমৃদ্ধ ইউরেনিয়াম উৎপাদনের পরিমাণ বাড়িয়ে দিয়েছে বলে নতুন করে উদ্বেগ বেড়েছে। এরই মধ্যে এই হত্যার ঘটনা ঘটল। বেসামরিক খাতে পারমাণবিক জ্বালানি তৈরির জন্য এবং একইসঙ্গে সামরিক কাজে ব্যবহারযোগ্য পারমাণবিক অস্ত্র উৎপাদনের জন্য সমৃদ্ধ ইউরেনিয়াম একটি আবশ্যিক উপাদান। ইরান সব সময়েই বলে এসেছে তারা শান্তিপূর্ণ কাজে ব্যবহারের জন্যই একমাত্র তাদের পরমাণু কর্মসূচি ব্যবহার করে।

ইরানের প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয় গতকাল জানিয়েছে, মন্ত্রণালয়ের গবেষণা ও উদ্ভাবনী সংস্থার প্রধান মোহসিন ফখরিজাদাহকে নিয়ে যে গাড়িটি যাচ্ছিল সশস্ত্র সন্ত্রাসীরা সেই গাড়ি লক্ষ্য করে বোমা হামলা চালায়। তার দেহরক্ষী ও সন্ত্রাসীদের মধ্যে এরপর সংঘর্ষ হয়।

এতে ফখরিজাদাহ গুরুতরভাবে আহত হন এবং দ্রুত তাকে হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। চিকিৎসকরা তাকে বাঁচানোর সবরকম চেষ্টা করলেও দুর্ভাগ্যজনকভাবে তারা ব্যর্থ হন।



আপনার মূল্যবান মতামত দিন:


Top