ঢাকা শুক্রবার, ১৫ই জানুয়ারী ২০২১, ২রা মাঘ ১৪২৭


ট্রাম্পকে আর একদিনও প্রেসিডেন্ট দেখতে চান না ডেমোক্র্যাটরা


প্রকাশিত:
৮ জানুয়ারী ২০২১ ১১:২১

আপডেট:
৯ জানুয়ারী ২০২১ ১১:৪৮

ডোনাল্ড ট্রাম্প। ফাইল ছবি

ডোনাল্ড ট্রাম্পকে আর একদিনও যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট পদে দেখতে চান না বলে জানিয়েছেন ডেমোক্র্যাট পার্টির সিনেটর ও প্রতিনিধি পরিষদের সদস্যরা। ক্যাপিটল ভবনে ন্যক্কারজনক হামলার জন্য ট্রাম্পের উসকানিকে দায়ী করে তারা প্রেসিডেন্টের অপসারণ দাবি করেছেন। খবর বিবিসি ও আলজাজিরার।

ডেমোক্র্যাটিক সিনেটর চাক শুমার বলেছেন, অনতিবিলম্বে ডোনাল্ড ট্রাম্পের অপসারণ দরকার। আর একদিনও তার প্রেসিডেন্ট পদে থাকা উচিত নয়। বাইডেন ক্ষমতা নেয়ার পর সিনেটে ডেমোক্র্যাটদের নেতৃত্ব দেবেন শুমার।

ট্রাম্পকে অপসারণে বর্তমান মন্ত্রিসভার প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন শুমার। এটি হতে গেলে অন্তত আট মন্ত্রীকে প্রেসিডেন্টের অপসারণের প্রস্তাবের পক্ষে রায় দিতে হবে। মার্কিন সংবিধানের ২৫তম সংশোধনী অনুযায়ী, প্রেসিডেন্ট মানসিক বা শারীরিক অসুস্থতার ফলে দায়িত্ব পালনে অক্ষম হলে তার স্থলে ভাইস প্রেসিডেন্ট দায়িত্ব নিতে পারবেন।

এদিকে ট্রাম্পের সরাসরি অভিশংসন দাবি করেছেন তার কড়া সমালোচক ও প্রতিনিধি পরিষদের স্পিকার ন্যান্সি পেলোসি। তিনি ট্রাম্পকে অপসারণ করতে ভাইস প্রেসিডেন্ট মাইক পেন্সকে আহ্বান জানিয়েছেন। ট্রাম্প নিজে থেকে সরে না দাঁড়ালে কিংবা তার মন্ত্রিসভা উদ্যোগ না নিলে ‘অভিশংসনের মাধ্যমে তাকে সরানো যেতে পারে’ বলে জানিয়েছেন হাউস স্পিকার ন্যান্সি পেলোসি।

ন্যান্সি পেলোসি বলেন, যদি ভাইস প্রেসিডেন্ট মাইক পেন্স ডোনাল্ড ট্রাম্পকে অপসারণ না করেন, তবে তাকে আগের মতো অভিশংসন করা হবে। পরবর্তী প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন ক্ষমতাগ্রহণের আগেই ট্রাম্পের অপসারণ চান পেলোসি। এর জন্য মার্কিন সংবিধানের ২৫তম সংশোধনীর জরুরি ব্যবহারের তাগিদ দেন তিনি।

এর আগেও একবার ডোনাল্ড ট্রাম্পকে অভিশংসন করা হয়েছিল। যদিও এ কারণে তাকে ক্ষমতা ছাড়তে হয়নি।

পেলোসি বৃহস্পতিবার বলেন, ট্রাম্পকে দ্রুত ক্ষমতা থেকে সরাতে হবে। তার স্বাভাবিকভাবে দায়িত্ব ছাড়ার দুই সপ্তাহ আগেই বাইডেনকে প্রেসিডেন্ট দেখতে চান পেলোসি। যুক্তরাষ্ট্রের নীতিনির্ধারকদের উচিত হবে– ট্রাম্পকে ক্ষমতাচ্যুত করতে যা করা দরকার তার সবই করা।

ডেমোক্র্যাট নেতা চাক শুমার ও পেলোসি দুজনই ট্রাম্পের বিরুদ্ধে মার্কিন সংবিধানের ২৫তম সংশোধনী প্রয়োগের দাবি জানান। তারা ভাইস প্রেসিডেন্টকে আহ্বান জানান দ্রুত যেন ট্রাম্পকে ক্ষমতাচ্যুত করা হয়। ভাইস প্রেসিডেন্ট যদি সেই পথে না এগোয়, তবে ট্রাম্পকে আরেকবার অভিশংসনের মুখোমুখি হওয়া লাগতে পারে।

ওয়াশিংটনে সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকাপে ট্রাম্পের কড়া সমালোচক পেলোসি বলেন, গতকাল প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প যুক্তরাষ্ট্রের বিরুদ্ধে অবস্থান নিয়েছেন। তিনি সশস্ত্র হামলা উসকে দিয়েছেন। তার উসকানিতেই ক্যাপিটল হিল যেটি যুক্তরাষ্ট্রের গণতন্ত্রের পবিত্র ভূমি রক্তাক্ত হয়েছে। কংগ্রেস সদস্যদের বিরুদ্ধে সহিংস হামলার ঘটনা ঘটেছে, যেটি এককথায় ভয়াবহ। এই ন্যক্কারজনক ঘটনা ভোলা সম্ভব নয়।

এদিকে মার্কিন হাউসের বিচার বিভাগীয় কমিটির বেশিরভাগ ডেমোক্র্যাটই বুধবার সন্ধ্যায় ভাইস প্রেসিডেন্ট মাইক পেন্সের কাছে চিঠি পাঠিয়েছেন।

বিবিসি জানায়, এ চিঠিতেই তারা ট্রাম্পের বিরুদ্ধে ‘ক্যাপিটলে হামলা উসকে দিয়ে গণতন্ত্রকে অবমাননা করার চেষ্টার অভিযোগ করে বলেছেন, সংবিধানের ২৫তম সংশোধনী প্রয়োগ করে তাকে প্রেসিডেন্ট পদ থেকে সরিয়ে দেয়া হোক।

অন্যদিকে এক ভিডিওবার্তায় ট্রাম্প বলেন, নিয়মমাফিক ক্ষমতা হস্তান্তরে তিনি বদ্ধপরিকর। ২০ জানুয়ারি নতুন প্রশাসন কাজ শুরু করবে।

ট্রাম্প বলেন, ‘বুধবারের সহিংসতা, আইনহীনতা ও সংঘাতের ঘটনায় তিনি নিজেও ক্ষুব্ধ। এই উত্তাপ অবশ্যই ঠাণ্ডা করতে হবে এবং স্বাভাবিকতা ফিরিয়ে আনতে হবে।’

প্রসঙ্গত নির্বাচনে জেতা বাইডেনকে পরবর্তী সময় প্রেসিডেন্ট হিসেবে আনুষ্ঠানিকভাবে অনুমোদন দিতে বুধবার কংগ্রেসের অধিবেশনে বসেন আইনপ্রণেতারা। সেই সময় শত শত ট্রাম্প সমর্থক কংগ্রেস ভবন ক্যাপিটলে ঢুকে হামলা ও ভাঙচুর চালায়। সংঘর্ষে নিহত হন অন্তত চারজন। এ সময় অর্ধশতাধিক ব্যক্তিকে আটক করা হয়।



আপনার মূল্যবান মতামত দিন:


Top