ঢাকা শুক্রবার, ১৫ই জানুয়ারী ২০২১, ২রা মাঘ ১৪২৭


সংবাদ সম্মেলনে দাবি

মেয়র সাক্কুর প্রকাশিত ভিডিওটি সুপার এডিট করা


প্রকাশিত:
২৪ ডিসেম্বর ২০২০ ১৯:৫৭

আপডেট:
১৫ জানুয়ারী ২০২১ ২৩:৫৩

ছবি-সংগৃহীত

কুমিল্লা সিটি মেয়র ও জেলা বিএনপির যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মো. মনিরুল হক সাক্কুর প্রকাশিত ভিডিওটি সুপার এডিট করা বলে দাবি করেছেন তার পক্ষের নেতা-কর্মীরা।

বৃহস্পতিবার (২৪ ডিসেম্বর) এক সংবাদ সম্মেলনে তারা এই দাবি করেন।

এর আগের দিন বুধবার বেগম খালেদা জিয়া ও তারেক জিয়াকে নিয়ে ‘বিরূপ মন্তব্য করায়’ কুমিল্লা সিটি মেয়র মো. মনিরুল হক সাক্কুকে নিঃশর্ত ক্ষমা চাওয়ার আহ্বান জানিয়ে সংবাদ সম্মেলন করেন জেলা ছাত্রদলের সাবেক সাধারণ সম্পাদক মো. নিজাম উদ্দিন কায়সার।

সে সময় নিজাম উদ্দিন কায়সার লিখিত বক্তব্যে বলেন, বিভিন্ন সোশ্যাল মিডিয়া ও পিডিটুয়েন্টিফোর ডটকম নামে একটি অনলাইন মিডিয়ায় মেয়র সাক্কু বেগম খালেদা জিয়া ও তারেক রহমানকে নিয়ে যে বক্তব্য রেখেছেন তা বিএনপি ও এর অঙ্গসংগঠনের নেতাদের হতাশ ও ক্ষুব্ধ করেছে। মেয়র সাক্কু বিএনপির ধানের শীষ প্রতীকে ভোটে নির্বাচিত কুমিল্লার মেয়র। তিনি খালেদা জিয়া-তারেক রহমানসহ কুমিল্লা জেলার বিভিন্ন নেতাদের নিয়ে যে বক্তব্য রেখেছেন, সে জন্য ক্ষমা না চাইলে মেয়র পদ থেকে পদত্যাগ করতে হবে।

তবে মেয়র সাক্কুর অনুসারীরা আজ বৃহস্পতিবার দক্ষিণ জেলা বিএনপির কার্যালয়ে পাল্টা সংবাদ সম্মেলন করেছেন। সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন জেলা ছাত্রদলের সাবেক সভাপতি নজরুল হক ভূঁইয়া স্বপন। এ সময় বৃহত্তর কুমিল্লা ছাত্রদলের প্রতিষ্ঠাকালীন সভাপতি মো. সফিকুর রহমান, তৎকালীন সাধারণ সম্পাদক মো. আবদুর রউফ চৌধুরী ফারুক, জেলা ছাত্রদলের সাবেক সভাপতি মো. জসিম উদ্দিন, মহানগর যুবদলের সাধারণ সম্পাদক মো. ইউসুফ মোল্লা টিপুসহ অন্যান্য নেতারা উপস্থিত ছিলেন।

বৃহস্পতিবারের সংবাদ সস্মেলনে নেতারা বলেন, যেই ভিডিওটি নিয়ে অপর পক্ষ সংবাদ সম্মেলন করেছে সেটি নয় মাস আগের এবং সুপার এডিট করা। নিজাম উদ্দিন কায়সার তাঁর ব্যক্তিগত ফেসবুক আইডি থেকে সেটি প্রচার করেছেন।

লিখিত বক্তব্যে নজরুল হক ভূঁইয়া স্বপন বলেন, মেয়র সাক্কুকে জড়িয়ে দেওয়া কায়সারের ওই বক্তব্য সম্পূর্ণ মিথ্যা, বানোয়াট ও কাল্পনিক। আমরা এর তীব্র নিন্দা ও ক্ষোভ প্রকাশ করছি। মেয়র সাক্কু প্রতিষ্ঠালগ্ন থেকে দলকে তৃণমূল থেকে সংগঠিত করেছেন।

এ প্রসঙ্গে কুমিল্লা দক্ষিণ জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক আমিন-উর রশিদ ইয়াছিন বলেন, ভিডিওটি বিএনপির নেতাকর্মীদের মর্মাহত করেছে। দলের কেন্দ্রীয় সিনিয়র নেতারা এ বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেবেন। আমরা দলের প্রয়োজনে মাঠে ছিলাম, আছি এবং আগামীতেও থাকবো।



আপনার মূল্যবান মতামত দিন:


Top